1. bangladeshbartatelevision@gmail.com : admin :
  2. ridoyhasanjoy@gmail.com : Reporter-1 :
  3. journalistrhasan@gmail.com : Reporter-2 :
  4. bangladeshbarta1@gmail.com : Reporter-3 :
  5. abdullah957980@gmail.com : Ramjan Bhuiyan : Ramjan Bhuiyan
প্রধান খবর
নীলফামারীতে রাতের আঁধারে আগাছানাশক বিষ দিয়ে লিচু বাগান ধ্বংস, মাথায় হাত কৃষকের ঠাকুরগাঁওয়ে বৃহত্তর রংপুর কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে ইফতার বিতরণ দূর্গাপুরে ডিএসকে পিকেএসএফ এর সহযোগিতায় প্রবীণদের মাঝে অর্থ বিতরণ সরাইলে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু ফরিদপুরে করোনা প্রচার কৌশল ও সুরক্ষা বিষয়ক ভার্চ্যুয়াল কর্মশালা গজারিয়ায় অসহায়দের মাঝে আব্দুল মোনেম ইকোনমিক জোন লিঃ উদ্যোগে ত্রাণ বিতরণ ফরিদগঞ্জে প্রতিবন্ধী বৃদ্ধাকে ধর্ষণের দায়ে যুবক আটক মতলব উত্তরে মইনীয়া যুব ফোরামের উদ্যোগে ২শ পরিবারে খাবার বিতরণ ভাঙ্গায় পারিবারিক কবরস্থানের জায়গা দখল করে গরুর খামার স্থাপন গফরগাঁওয়ে বিপাকে পরা কৃষকের ধান কেটে দিলো কৃষক লীগ

ইসলামে নারীর অধিকার

  • Thursday, January 7, 2021
  • 56 বার পড়া হয়েছে

তাহেরা আক্তার;গাজীপুর (সদর)প্রতিনিধি  ইসলাম নারীকে দিয়েছে মহান মর্যাদা।মা হিসেবে নারীকে সম্মান দিয়েছে,বোন হিসেবে সম্মান দিয়েছে,স্ত্রী হিসেবেও দিয়েছে মর্যাদা।মায়ের সাথে সদ্ব্যবহার করা,মায়ের আনুগত্য করা ফরয হিসেবে ঘোষণা করেছেন আল-কোরআনে।
মায়ের সন্তুষ্টিকে আল্লাহ্‌র সন্তুষ্টি হিসেবে গণ্য করেছে।
ইসলাম জানিয়েছে,মায়ের পদতলেই সন্তানের বেহেশত।অর্থাৎ জান্নাতে যাওয়ার সহজ রাস্তা হচ্ছেন-মা।মায়ের অবাধ্য হওয়া,মাকে রাগান্বিত করা—হারাম;এমনকি সেটা যদি শুধু উফ্‌ শব্দ উচ্চারণ করার মাধ্যমে হয় তবুও।আবার জন্মদাতা পিতার অধিকারের চেয়েও মায়ের অধিকার বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মহান আল্লাহ তায়ালা ঘোষণা করেছে।
যেমন-
আল্লাহর বাণী:“আমরা মানুষকে তার মাতা-পিতার সাথে সদ্ব্যবহার করার নির্দেশ দিয়েছি।”[সূরা আহক্বাফ, আয়াত: ১৫]
“আর আপনার রব আদেশ দিয়েছেন তিনি ছাড়া অন্য কারো ইবাদত না করতে ও মাতা-পিতার প্রতি সদ্ব্যবহার করতে।তারা একজন বা উভয়ই তোমার জীবদ্দশায় বার্ধক্যে উপনীত হলে তাদেরকে ‘উফ’ বলো না এবং তাদেরকে ধমক দিও না।তাদের সাথে সম্মানসূচক কথা বল।আর মমতাবশে তাদের প্রতি নম্রতার পক্ষপুট অবনমিত কর এবং বল ‘হে আমার রব!তাঁদের প্রতি দয়া করুন যেভাবে শৈশবে তাঁরা আমাকে প্রতিপালন করেছিলেন।”[সূরা বনী ইসরাইল,আয়াত: ২৩-২৪]
ইবনে মাজাহ (২৭৮১) মুয়াবিয়া বিন জাহিমা আল-সুলামি (রাঃ) থেকে বর্ণনা করেন যে,তিনি বলেন:আমি রাসূলুল্লাহ্‌ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে এসে বললাম:ইয়া রাসূলুল্লাহ্‌!
আমি আপনার সাথে জিহাদে যেতে চাই;এর মাধ্যমে আল্লাহ্‌র সন্তুষ্টি ও আখেরাত অর্জন করতে চাই।
তিনি বললেন:তোমার জন্য আফসোস!তোমার মা কি জীবিত?আমি বললাম:হ্যাঁ। রাসূল (সাঃ) বললেন:ফিরে গিয়ে তার সেবা কর।এরপর আমি অন্যভাবে আবার তাঁর কাছে এসে বললাম:ইয়া রাসূলুল্লাহ্‌!
আমি আপনার সাথে জিহাদে যেতে চাই।এর মাধ্যমে আল্লাহ্‌র সন্তুষ্টি ও আখেরাত অর্জন করতে চাই।তিনি বললেন: তোমার জন্য আফসোস! তোমার মা কি জীবিত?আমি বললাম: হ্যাঁ।
তিনি বললেন:তার কাছে ফিরে গিয়ে তার সেবা কর।এরপরও আমি তাঁর সামনে থেকে এসে বললাম:ইয়া রাসূলুল্লাহ্‌!আমি আপনার সাথে জিহাদে যেতে চাই।এর মাধ্যমে আল্লাহ্‌র সন্তুষ্টি ও আখেরাত অর্জন করতে চাই।
তিনি বললেন:তোমার জন্য আফসোস!তোমার মা কি জীবিত? আমি বললাম:হ্যাঁ। তিনি বললেন:তোমার জন্য আফসোস!তুমি তার পায়ের কাছে পড়ে থাক।সেখানেই জান্নাত রয়েছে।”[আলবানী সহিহু সুনানে ইবনে মাজাহ গ্রন্থে হাদিসটিকে সহিহ বলেছেন।
হাদিসটি সুনানে নাসাঈ গ্রন্থেও (৩১০৪) রয়েছে। সেখানে হাদিসটির ভাষ্য হচ্ছে- “তার পায়ের কাছে পড়ে থাক। তার পায়ের নীচে রয়েছে–জান্নাত।”
সহিহ বুখারী (৫৯৭১) ও সহিহ মুসলিমে (২৫৪৮)
আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত হয়েছে যে,তিনি বলেন: “এক ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ্‌ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাছে এসে বলল:ইয়া রাসূলুল্লাহ্‌!আমার সদ্ব্যবহার পাওয়ার বেশি অধিকার কার? তিনি বললেন:তোমার মায়ের। লোকটি বলল:এরপর কার? তিনি বললেন:তোমার মায়ের। লোকটি বলল:এরপর কার? তিনি বললেন:তোমার মায়ের। লোকটি বলল:এরপর কার? তিনি বললেন:তোমার পিতার।”
ইসলাম সন্তানের উপর মায়ের যে অধিকার নির্ধারণ করেছে এর মধ্যে রয়েছে মায়ের খোরপোষের প্রয়োজন হলে খোরপোষ দেয়া;যদি সন্তান শক্তিশালী ও সামর্থ্যবান হয়।
স্ত্রীর মর্যাদা দিয়েও ইসলাম নারীকে সম্মানিত করেছে। ইসলাম স্বামীদেরকে নির্দেশ দিয়েছে স্ত্রীর সাথে ভাল আচরণ করার,জীবন ধারণের ক্ষেত্রে নারীর প্রতি ইহসান করার।ইসলাম জানিয়েছে স্বামীর যেমন অধিকার রয়েছে স্ত্রীর প্রতি ঠিক তেমনি স্ত্রীরও অধিকার রয়েছে স্বামীর প্রতি।
ইসলাম ঘোষণা করেছে, সর্বোত্তম মুসলমান হচ্ছে সেই ব্যক্তি যে তার স্ত্রীর সাথে আচার-আচরণে ভাল।স্ত্রীর অনুমতি ব্যতীত তার সম্পদ গ্রহণ করাকে নিষিদ্ধ করেছে। এর দলিল হচ্ছে,
আল্লাহ্‌র বাণী:“তোমরা তাদের সাথে সদ্ভাবে জীবনযাপন কর”[সূরা নিসা,আয়াত: ১৯]
আল্লাহ্‌ বলেন:“আর নারীদের তেমনি ন্যায়সংগত অধিকার আছে যেমন আছে তাদের উপর পুরুষদের;আর নারীদের উপর পুরুষদের মর্যাদা রয়েছে। আর আল্লাহ্‌ মহাপরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়।”[সূরা নিসা,আয়াত: ২২৮]
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:“তোমরা নারীদের সাথে ভাল ব্যবহার করার ব্যাপারে ওসিয়ত গ্রহণ কর।”[সহিহ বুখারী (৩৩৩১) ও সহিহ মুসলিম (১৪৬৮)]
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:“তোমাদের মধ্যে সেই ব্যক্তি উত্তম যে তার পরিবারের কাছে উত্তম।আমি আমার পরিবারের কাছে উত্তম।”[সুনানে তিরমিযি (৩৮৯৫), সুনানে ইবনে মাজাহ (১৯৭৭)]
মেয়ে হিসেবেও ইসলাম নারীকে সম্মানিত করেছে।ইসলাম মেয়ে সন্তান প্রতিপালন ও শিক্ষা দেয়ার প্রতি উদ্বুদ্ধ করেছে। মেয়ে সন্তান প্রতিপালনের জন্য মহা প্রতিদান ঘোষণা করেছে।
এ বিষয়ে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বাণী হচ্ছে- “যে ব্যক্তি বালেগ হওয়া পর্যন্ত দুইজন মেয়েকে লালন- পালন করবেন সে ও আমি কিয়ামতের দিন এভাবে আসব (তিনি আঙ্গুলসমূহকে একত্রিত করে দেখালেন)”।[সহিহ মুসলিম (২৩১)]
ইবনে মাজাহ (৩৬৬৯) উকবা বিন আমের (রাঃ)থেকে বর্ণনা করেন যে,তিনি বলেন:আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি তিনি বলেন:“যে ব্যক্তির তিনজন মেয়ে রয়েছে।তিনি যদি মেয়েদের ব্যাপারে ধৈর্য্য ধারণ করেন,তাদেরকে সচ্ছলভাবে খাওয়ান ও পরান; এ মেয়েরা কিয়ামতের দিন তার জন্য জাহান্নামের আগুনের মাঝে বাধা হবে।”[আলবানী সহিহ ইবনে মাজাহ গ্রন্থে হাদিসটিকে সহিহ আখ্যায়িত করেছেন]
ইসলাম নারীকে বোন,ফুফু ও খালা হিসেবেও সম্মানিত করেছেন।ইসলাম সিলাতুর রেহেম বা আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষা করার নির্দেশ দিয়েছে ও এ বিষয়ে উদ্বুদ্ধ করেছে। আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করা— হারাম হওয়ার কথা অনেক দলিল-প্রমাণে এসেছে।
যেমন-নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বাণী: “হে লোকেরা!তোমরা সালামের প্রচলন কর,মানুষকে খাবার খাওয়াও,আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষা কর,রাতের বেলা নামায আদায় কর যখন মানুষ ঘুমিয়ে থাক;তাহলে তোমরা নিরাপদে জান্নাতে প্রবেশ করবে।”[সুনানে ইবনে মাজাহ (৩২৫১), আলবানী সহিহ সুনানে ইবনে মাজাহ গ্রন্থে হাদি হাদিসটিকে সহিহ আখ্যায়িত কর

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

MD

Customized BY NewsTheme