1. bangladeshbartatelevision@gmail.com : admin :
  2. ridoyhasanjoy@gmail.com : Reporter-1 :
  3. journalistrhasan@gmail.com : Reporter-2 :
  4. bangladeshbarta1@gmail.com : Reporter-3 :
  5. abdullah957980@gmail.com : Ramjan Bhuiyan : Ramjan Bhuiyan

নাটোরে জেলা শিক্ষা অফিসারকে শোকজ

  • শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

ইমাম হাছাইন পিন্টু নাটোর:

নাটোরে সরকারী দিবসের প্রস্তুতি সভায় উপস্থিত না থাকায় শোকজ করা হয়েছে জেলা শিক্ষা অফিসার রমজান আলী আকন্দকে।

নাটোর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে চারটি সরকারী দিবসের প্রস্তুতি সভায় অনুপস্থিত থাকায় জেলা শিক্ষা অফিসারকে শোকজ করার নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক মো: শাহরিয়াজ।

জানা যায়, নাটোর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে ঐতিহ্যাসিক ৭মার্চ, ১৭মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী পালন, ২৫মার্চ গণহত্যা দিবস এবং ২৬মার্চ স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভার আহবান করেন জেলা প্রশাসক মো: শাহরিয়াজ।

সভায় জেলার সকল সরকারী কর্মকর্তা সহ অন্যান্যরা উপস্থিত থাকলেও জেলা শিক্ষা অফিসার রমজান আলী আকন্দ তার একজন প্রতিনিধিকে পাঠান।

এসময় সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক গোলাম রাব্বাী বিভিন্ন দিবসের পাশাপাশি সরকারী মিটিংগুলো জেলা শিক্ষা অফিসারের অনুপস্থিতির বিষয়টি উপস্থাপন করেন।

এসময় জেলা প্রশাসক বিষয়টি আমলে নিয়ে জেলা শিক্ষা অফিসার রমজান আলী আকন্দকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশরাফুল ইসলামকে নির্দেশ দেন। এছাড়া কারণ দর্শানো নোটিশ শিক্ষা সচিব বরাবর পাঠানোর জন্য নির্দেশ দেন।

জেলা প্রশাসক মো: শাহরিয়াজ জানান, মাঝে মধ্যেই প্রতিনিধি পাঠিয়ে বিভিন্ন সভায় অনুপস্থিত থাকেন জেলা শিক্ষা অফিসার। সরকারী দিবসগুলো নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সভায় তিনি অনুপস্থিত থাকেন। যার কারনে তার কাছে ব্যাখা চাওয়া হয়েছে।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশরাফুল ইসলাম বলেন, ডিসি স্যারের নির্দেশে জেলা শিক্ষা অফিসারকে কারণ দর্শানো নোটিশ প্রস্তুত করা হয়েছে। ইতোমধ্যে বিষয়টি তাকে জানানো হয়েছে।

এবিষয়ে নাটোর জেলা শিক্ষা অফিসার রমজান আলী আকন্দ জানান, তিনি ছুটি নিয়েছেন। এতে শোকজের প্রশ্নই আসেনা

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

MD

Customized BY NewsTheme