1. bangladeshbartatelevision@gmail.com : admin :
  2. ridoyhasanjoy@gmail.com : Reporter-1 :
  3. journalistrhasan@gmail.com : Reporter-2 :
  4. bangladeshbarta1@gmail.com : Reporter-3 :
  5. abdullah957980@gmail.com : Ramjan Bhuiyan : Ramjan Bhuiyan

তারাকান্দায় দারুল আরকামের ৩০০শত শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন অনিশ্চয়তায়

  • বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২১

আবুল হাসান হাশেম,তারাকান্দা(ময়মনসিংহ)প্রতিনিধি:

ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর মাধ্যমে পরিচালিত ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা উপজেলায় দুইটি দারুল আরকাম মাদ্রাসার ৩০০শত শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।
জানা যায় ২০১৮ সালে বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অন্তর্ভূক্ত ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রকল্পের মাধ্যমে পরিচালিত দারুল আরকাম ইবতেদায়ী নামক মাদ্রাসা দু’টিতে ৩০০জন শিক্ষার্থী অধ্যয়ণ করে আসছে।

২০২০সালের ৩০শে ডিসেম্বর প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়। করোনার প্রাদুর্ভাবের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় বিগত ১৭ই মার্চ শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্ত্তৃিক দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহের সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়।তারই ধারাবাহিকতায় দারুল আরকাম মাদ্রাসা গুলোও বন্ধ থাকে।কিন্ত থেমে যায়নি দারুল আরকামের শিক্ষকদের কার্যক্রম।

বর্তমানে ২০২১সালেও দারুল আরকাম মাদ্রাসার প্রকল্পটি দ্বিতীয় বার পাশ না হওয়ায় থমকে গেছে দারুল আরকাম মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রম,অনিশ্চয়তার জ্বালে আটকে পরেছে দু’টি মাদ্রাসার ৩০০শত শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন।

এনিয়ে মুটোফোনে কথা হয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ময়মনসিংহ সিনিয়র ফিল্ড সুপাভাইজার খন্দকার মোস্তফা জামালের সাথে তিনি প্রতিনিধিকে জানান,প্রকল্পটি কেন পাশ হলোনা তা তিনি নিজেই বুজতে পারছেন না,তিনি আরও জানান,আমি তারাকান্দা উপজেলা কর্মরত অবস্হা থাকা কালীন সময়ে মাদ্রাসা দু’টির স্হান নির্বাচনের সময় আমাদেরকে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে,তাছাড়া বর্তমানে মাদ্রাসায় কয়েক লক্ষ টাকার আসবাবপত্র ও শিক্ষা উপকরণ সেখানে বিদ্বমান রয়েছে।

বড়ই বাড়ি দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদ্রাসার প্রতিবন্ধী সহকারী শিক্ষক ফুরকান আলী তিনি প্রতিনিধিকে জানান,আমরা বিগত এক বৎসর যাবত বিনা বেতনে মাদ্রাসায় বন্ধকালীন সময়েও কিছু কিছু সরকারী দিবস সমূহ কাজ নিয়মিত চালিয়ে যাচ্ছি,তিনি আরও জানান,আমি বিগত দুই বৎসর যাবত ফুলপুর উপজেলা হতে নিয়মিত ক্লাস চালিয়ে আসছি,বর্তমানে প্রল্পটি পাশ না হওয়ার কারণে ১বৎসর যাবত বেতন না পাওয়ায় সন্তানদের নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি।তিনি বলেন, প্রল্পটি পাশ না হওয়ায় একদিকে শিক্ষার্থীদের জীবনে নেমে এসেছে চরম ব্যত্যয়, অপর দিকে আমাদের শিক্ষকদের জীবনে বেকারত্ব নেমে আসল।

অপরদিকে মাদ্রাসার ভূমিদাতা মরহুম আলহাজ্ব আব্দুর রহিমের স্ত্রী মোছাঃ হাজেরা থাতুন তিনি জানান,আমার স্বামী জীবিত থাকা কালীন সমময়ে মাদ্রাসার জন্য ৩০শতক জমি দান করে গিয়েছেন যাতে মাদ্রাসায় এলাকার শিক্ষার্থীরা লেখা পড়া করে দ্বীনি ইলম অর্জণ করে ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারে,কিন্তু আজ হঠাৎ যদি এই দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে আমাদের এলাকার শিক্ষার্থীদের জীবনে একটি ধস নেমে আসবে এবং এই শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন থেকে ঝড়ে পড়ার সম্ভবনা বেশী।

তিনি সরকারের নিকট জোর দাবী জানিয়ে বলেন,আমি আশাবাদী সরকার দারুল আরকাম মাদ্রাসার প্রকল্পটি নতুন করে পাশ করে শিক্ষার্থীদেরকে তাদের শিক্ষার পরিবেশ তৈরী করে দিবেন।
মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর একজন অবিভাবক মোহাঃ মিয়াজ উদ্দিন তিনি প্রতিনিধিকে জানান,দারুল আরকাম মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রমে মুগ্ধ হয়ে আমি আমার ছেলেকে দুই বৎসর যাবত এখানে পড়তে দিয়েছি,এবৎসর আমার ছেলে ৪র্থ শ্রেণীতে পড়বে কিন্তু হঠাৎ শুনলাম মাদ্রাসার প্রকল্পটি সরকার পাশ করেনি তাতে শুনে মনে খুব কষ্ট লাগলো।এখন আমার ছেলের লেখা পড়া নিয়ে আমি খবই চিন্তিত।

ভালো লাগলে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই কেটাগরির আরো খবর

MD

Customized BY NewsTheme